Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

 

 

ক্রমিক নং

সেবার নাম

পদ্ধতি

মন্তব্য

নতুন ভোটার অন্তর্ভুক্তি

যাদের জন্ম ০১-০১-১৯৯৫ ইং তারিখ বা তার আগে তারা নির্ধারিত ২ নং এবং ১১ নং ফরমে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপজেলা নিবার্চন অফিসে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের সাথে জন্ম নিবন্ধনপত্র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অথবা পৌরসভার মেয়র প্রদত্ত নাগরিকত্ব ও অধিবাসীর সনদ, ইউটিলিটি বিলের কপি, পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে :  স্বামী/স্ত্রীর জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি, এস এস সি পাসের সার্টিফিকেটের ফটোকপি, পাসপোর্ট এর ফটোকপি জমা দিতে হবে। সকল কাগজপত্র ১ম শ্রেনীর সরকারী কর্মকর্তা কতৃর্ক সত্যায়িত হতে হবে।

উপজেলা নিবার্চন অফিসার ও রেজিষ্ট্রেশন অফিসার দাখিলকৃত কাগজপত্র যাচাইবাছাই ও আবেদনকারীর  সাক্ষাতকার গ্রহন করবেন। প্রয়োজনে সরেজমিন তদন্ত করে ভোটার তালিকাভুক্তির ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

ভোটার স্থানান্তর

এক ভোটার এলাকা থেকে অন্য ভোটার এলাকায় নাম স্থানান্তরের জন্য নির্ধারিত (ফরম ১৩ বা ফরম ১৪) ফরমে উপজেলা নিবার্চন অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্রের সাথে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, ইউটিলিটি বিলের কপি, অধিবাসী হিসেবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অথবা পৌরসভার মেয়র প্রদত্ত সাটিফিকেট এর ফটোকপি। সকল কাগজপত্র ১ম শ্রেনীর সরকারী কর্মকর্তা কতৃর্ক সত্যায়িত হতে হবে।

উপজেলা নিবার্চন  অফিসার ও রেজিষ্ট্রেশন অফিসার দাখিলকৃত কাগজপত্র যাচাইবাছাই ও আবেদনকারীর  সাক্ষাতকার গ্রহন করবেন। প্রয়োজনে সরেজমিন তদন্ত করে ভোটার স্থানান্তরের ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

হারিয়ে যাওয়া জাতীয় পরিচয়পত্রের ডুপ্লিকেট কপি সংগ্রহ।

হারিয়ে যাওয়া জাতীয় পরিচয়পত্রের ডুপ্লিকেট কপি সংগ্রহ করার জন্য নিধারিত ছকে উপজেলা নিবার্চন অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্রের সাথে হারিয়ে যাওয়ার বিষয়ে পুলিশি থানায় জিডি এন্টির মূল কপি জমা দিতে হবে। জিডি এন্ট্রির কপিতে ‘PIN নম্বর’ অথবা ‘ভোটার নম্বর’ উল্লেখ থাকতে হবে। উল্লেখ্য, জাতীয় পরিচয়পত্রে ১৩ অথবা ১৭ অঙ্কের যে নম্বরটি আছে ইহাই PIN নম্বর। কারো নিকট হারানো আইডি কাডের্র ফটোকপি বা উক্ত PIN নম্বরটি সংরক্ষিত না থাকলে জিডি এন্ট্রি করার পূবে উপজেলা নিবার্চন অফিস হতে ‘ভোটার নম্বর’ সংগ্রহ করা যাবে, সে ক্ষেত্রে একই বাড়ীতে অথবা একই হোল্ডিং নম্বরে ভোটার হয়েছেন এমন কারো ভোটার আইডি কাডের ফটোকপি সাথে আনলে ভোটার তালিকা থেকে ‘ভোটার নম্বর’ খুজেঁ পেতে সহজ হবে।প্রসংগত উল্লেখ্য, আবেদনকারী স্বয়ং হারিয়ে যাওয়া আইডি কাডে প্রদত্ত স্বাক্ষর এর অনুরূপ স্বাক্ষর দিয়ে আবেদন করবেন।পক্ষে কোন আবেদন গ্রহনযোগ্য নয়।

প্রাপ্ত আবেদনসমূহ যাচাই বাছাই শেষে প্রসেস করে জেলা নিবার্চন অফিস এর মাধ্যমে নিবার্চন কমিশন সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট অনুবিভাগে প্রতি মাসে এক বার প্রেরণ করা হয়।সেখান থেকে কাড পুনরায় প্রস্তুত হয়ে ফিরে আসতে সাধারণত ১ মাসের অধিক সময় প্রয়োজন হয়।

জাতীয় পরিচয় পত্রের ভুল সংশোধন

জাতীয় পরিচয় পত্রে মুদ্রনজনিত কোন ভুল ত্রুটি থাকলে মুল কাডের ফটোকপি নিজের সংরক্ষণে রেখে মূল কাডর্সহ নিধারিত ছকে উপজেলা নিবার্চন অফিসে আবেদন করতে হবে। আবেদন পত্রের সাথে আবেদনের স্বপক্ষে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যাচাই-বাছাই, আবেদনকারীর সাক্ষাতকার গ্রহন ও প্রয়োজনে সরেজমিন তদন্ত করে আবেদনের যৌক্তিকতা পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়।

জাতীয় পরিচয় পত্র সরবরাহ

যে সকল ব্যাক্তি ভোটার তালিকায় নাম অন্তভুর্ক্তির জন্য ইতোমধ্যে ছবি তুলেছেন তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র নিবার্চন কমিশন সচিবালয় হতে সরবরাহ পাওয়া গেলে উপজেলা নিবার্চন অফিস হতে বিলি করা হয়। উল্লেখ্য, ২০১২ সালে পলাশ উপজেলায় যে সকল ব্যক্তি ছবি তুলেছেন তাদের আইডি কাড এখনো অত্রাফিসে পাওয়া যায় নাই। তবে কারো আইডি কাড জরুরী প্রয়োজন হলে ভোটার নিবন্ধনের স্লিপ (ছবি তোলার সময় ভোটারকে প্রদত্ত ফরমের অংশ) সহ ঢাকার আগারগাঁওস্থ ইসলামিক ফাউন্ডেশন ভবনের ৭ম তলায় গিয়ে আবেদন করতে পারবেন। অফিস কাযর্দিবসে সকাল ১১.০০ ঘটিকার মধ্যে উক্ত অফিসে আবেদন করলে ঐ দিনই বিকাল ৪.০০ ঘটিকার পর আইডি কাড পাওয়া যেতে পারে। উল্লেখ্য, আবেদন ফরম উক্ত অফিসে-ই পাওয়া যাবে এবং ভোটার –কে নিজে গিয়ে আবেদন করতে হবে।

২০১২ সালে যারা ছবি তুলেছেন তাদের আইডি কাড অক্টোবর /২০১৩ মাসের শেষ দিকে পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

ছবি ছাড়া ভোটার তালিকার সিডি সরবরাহ

জাতীয় অথবা স্থানীয় নিবার্চনের সময় নিধারিত ফি জমা প্রদান সাপেক্ষে নিবার্চন কমিশনের নিদের্শনা মোতাবেক ছবি ছাড়া ভোটার তালিকার সিডি সরবারহ করা হয়।

 

নিবার্চন সংক্রান্ত

নিবার্চন সংশ্রিষ্ট প্রয়োজনীয় সেবাসমূহ প্রদান করা হয়